fbpx
Jun 7, 2019
5162 Views

ই-লার্নিং ও বাংলাদেশ

Written by

লার্নিং:

ই-লার্নিং একটি শিখন পদ্ধতি যা ল্যাপটপ, ইন্টারনেট, ডিভিডি, সিডি-রম ইত্যাদি ইলেকট্রনিক সংস্থানের উপর ভিত্তি করে তৈরি। এই সিস্টেম দ্বারা একজন শিক্ষক শ্রেণীকক্ষ বা শ্রেণীকক্ষের বাইরের অনেক ছাত্রকে শেখাতে পারেন। এটি শিক্ষার একটি অতি আধুনিক পদ্ধতি। এটি শিক্ষক এবং ছাত্রদের জন্য আগ্রহ  সৃষ্টি করে। এটি শিক্ষার এক ধরনের বিপ্লব। বর্তমানে স্মার্টফোন, ট্যাবলেট ল্যাপটপ এবং ডেস্কটপ প্রভৃতি ডিভাইসগুলি ব্যবহার করে শিক্ষার্থীরা শিখন প্ল্যাটফর্ম পেতে পারে যা ই-লার্নিং নামে পরিচিত। ইন্টারনেট জ্ঞানের ভান্ডার। শিক্ষার্থীরা ইন্টারনেট ব্যবহার করে যে কোন জায়গায় বা যে কোন সময় তার প্রয়োজনে শিখতে পারে। এটি সনাতন শিক্ষার মত গুরুত্বপূর্ণ। এটি শিক্ষক সহকারী হিসাবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ই-লার্নিং বর্তমান শেখার একটি চাহিদা। ই-লার্নিং শিক্ষার একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ।

 

লার্নিং এর উপকারিতা:

আজকের শিক্ষার্থীরা প্রাসঙ্গিক, শিখতে ইচ্ছুক, নিজেকে আপডেট করতে ইচ্ছুক। তাদের শেখার জন্য অনলাইন প্ল্যাটফর্ম প্রয়োজন। ই-লার্নিং প্ল্যাটফর্ম দ্বারা, ছাত্র তাদের নিজস্ব প্রয়োজনে কিছু শিখতে পারে। ছাত্রদের জন্য ই-লার্নিং এর অনেক সুবিধা রয়েছে।

 

First: লার্নিং যে কারো জন্য: ই-লার্নিং যে কারো জন্য উপযুক্ত। এটি শিক্ষায় অসাধারণ পরিবর্তন এনেছে। এটি অনলাইন কোর্স গ্রহণকারীর জন্য – যা অফিসের ব্যক্তি বা গৃহকর্ত্রী বা ছাত্র বা পেশাদারদের তাদের প্রাপ্যতা এবং সময় অনুযায়ী গ্রহণ করতে পারে। এটি অনলাইন কোর্স গ্রহণকারীর শেখার জন্য যেখানে কোর্স গ্রহণকারী প্রতিদিন, সন্ধ্যায়, বা সপ্তাহান্তে শিখতে পারেন। মূলত এটা অবশ্যই গ্রহণকারীর উপর নির্ভর করে।

  1. একটি বক্তৃতা এক সময়ের জন্য নয়ঃ একজন কোর্স গ্রহণকারী অনেক বার একটি লেকচার দেখতে পারে- যা তাকে বিশেষ বিষয়গুলি খুব সফলভাবে বুঝতে এবং পরীক্ষার প্রস্তুতি নিতে সাহায্য করে।
  2. আপডেট হওয়া সামগ্রী: ই-লার্নিং- এ, কন্টেন্ট নির্মাতা শিক্ষার্থীদের জন্য আপডেট কন্টেন্ট তৈরি করে। এটি শিক্ষার্থীদের আপডেট করা কন্টেন্ট অ্যাক্সেস করতে সক্ষম করে। একজন কোর্স গ্রহণকারী এই বিষয়বস্তুটি মূল্যায়নের জন্য তার বন্ধুদের সাথে ভাগ করতে পারেন এবং এইভাবে বিষয়বস্তু নির্মাতা মন্তব্য পেতে পারেন বা নতুন সামগ্রীটির জন্য পর্যালোচনা পেতে পারেন এবং তিনি আপডেট করা কন্টেন্ট তৈরি করতে চলেছেন।
  3. দ্রুত বিতরণযোগ্য: এটি দ্রুত শিক্ষা প্রদানের প্রক্রিয়া। প্রথাগত শিক্ষাব্যবস্থায় যেখানে যথেষ্ট সময় প্রয়োজন সেখানে ই-লার্নিং ২৫%-৬০ সময় বাঁচায়।
  4. বিষয় সুনির্দিষ্টঃ ই-লার্নিং-এ, একটি পাঠ নির্দিষ্ট বিষয় এবং নির্দিষ্ট সময়ের উপর নির্ভর করে তবে ঐতিহ্যগত সিস্টেমের চেয়ে সহজ। শিক্ষার্থীরা নির্দিষ্ট শেখার বিষয় বাছাই করতে পারে এবং কিছু কিছু বিষয় এড়িয়ে যেতে পারে- যা তারা জানতে চায় না।
  5. শিক্ষার্থীর আত্ম-মূল্যায়নঃ ই-লার্নিং দ্বারা কোর্স গ্রহণকারী অবশ্যই তার কোর্সের বিষয়ে আত্ম-মূল্যায়ন করতে পারে।
  6. সময় কম লাগে: ই-লার্নিং কোর্স গ্রহণকারীর জন্য সময় বাঁচায়।
  7. বাড়ি ভিত্তিক বা নিজস্ব স্থানভিত্তিক শেখা: ই-লার্নিং-এ শিক্ষার্থীকে প্রশিক্ষণ ভেন্যুতে ভ্রমণ করতে হয় না এবং সে তার নিজের বাড়ীতে বা তার নিজস্ব স্থানে থেকে শিখতে পারে।
  8. পরিমাপযোগ্য: ই-লার্নিং নতুন পদ্ধতিতে কোর্স প্রবর্তন করে – যা আধুনিক ভাবে পরিমাপযোগ্য।
  9. শিক্ষকের পক্ষে সহায়ক: ই-লার্নিং শিক্ষকের পক্ষে যথেষ্ট সহায়ক ভূমিকা পালন করে। একজন শিক্ষক নির্দিষ্ট শ্রোতা এবং দর্শকদের কাছে তার ক্লাসটি উপস্থাপন করতে পারেন।
  10. খরচ হ্রাস: ই-লার্নিং শেখার খরচ কমাতে পারে। এটা প্রশিক্ষকদের খরচ কমায়। এটি একটি সংস্থার মুনাফা বৃদ্ধি করতে সহায়তা করে কারণ এটি প্রশিক্ষণ খরচ কমায়।
  11. অধিক কার্যকর: এটি শিক্ষক বা ছাত্রদের জন্য অধিক কার্যকর। এর সার্টিফিকেশন, পরীক্ষা বা মূল্যায়ন পদ্ধতি উন্নত। এর মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা ভাল স্তর অর্জন করতে পারে। তারা তাদের জ্ঞান উন্নত করতে এবং বাস্তব জীবনে এই জ্ঞান প্রয়োগ করতে পারে।
  12. পরিবেশ বান্ধব: ই-লার্নিং একটি কাগজহীন শিক্ষা পদ্ধতি। এই ব্যবস্থার কারণে শিক্ষার জন্য কাগজ তৈরি করতে গাছ কাটতে হবে না। এটি কেবল পরিবেশ রক্ষাই নয় বরং পরিবেশগত ভারসাম্য বজায় রাখে। এটি 90% কম শক্তি খরচ করে এবং পরিবেশ বান্ধব শক্তি তৈরি করে।

 

বাংলাদেশে লার্নিং

বাংলাদেশ ওপেন ইউনিভার্সিটি 199২ সালে টেলিভিশন বা রেডিওতে এর দূরবর্তী শিক্ষার্থীদের জন্য ক্লাস তৈরি করেছে- যা ই-লার্নিং এর উদাহরণ। বর্তমানে সরকার মুক্তপাঠ, শিক্ষক কম, শিক্ষক বাতায়ন এর মত অনেক ওয়েব পোর্টাল তৈরি করেছে। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা করেন, শিক্ষক বাতায়নে 9 লক্ষ শিক্ষককে সংযুক্ত করা হবে। ব্যক্তিগতভাবে, বিভিন্ন ওয়েব পোর্টাল তৈরি হয়েছে। অন্যদিকে, বাংলাদেশী ইউটিউবারগণ বাংলা ভাষায়

বাংলাদেশী শিক্ষার্থীদের জন্য অনেক কন্টেন্ট তৈরি করেছে। এটি এক ধরনের সুসংবাদ যে বাংলাদেশে আমরা শ্রেণীকক্ষে শিক্ষার জন্য মাল্টিমিডিয়া ব্যবহার করতে সক্ষম এবং আমরা ভাল ভবিষ্যতের জন্য ই-লার্নিং প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করতে পারি।

 

উপসংহার

অনেক সুবিধার কারণে, ই-লার্নিং শিক্ষকদের পাশাপাশি সারা বিশ্বের শিক্ষার্থীদের জন্য জনপ্রিয় পদ্ধতি হয়ে উঠেছে।

Submit your review
1
2
3
4
5
Submit
     
Cancel

Create your own review
Techtunes
Average rating:  
 1 reviews
by raselviper@yandex.com on Techtunes
সে একটা মাদারচোদ

সে একটা মাদারচোদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *