করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচার উপায়!

আশ্চর্যজনক উপায়ে COVID -19 প্রতিরোধ

যেহেতু এখনো covid-19 কোন ভ্যাকসিন তৈরি করা সম্ভব হয় নাই। তাই আপনি ও আপনার পরিবার পুরোপুরি আশ্চর্যজনক উপায়ে এই ভাইরাসের সংক্রমণের লক্ষণগুলো প্রতিরোধ করে এবং বিভিন্ন সতর্কতা অবলম্বন করে পুরোপুরি নিরাপদ থাকতে পারবেন।

হিউম্যান করোনা ভাইরাসের ছয়টি লক্ষণ

NL63, 229E, HKU1,OC43,মার্স এবং সার্স লক্ষণ।এই ছয়টি লক্ষণের মধ্যে মার্স এবং সার্স
মারাত্মক লক্ষণ সৃষ্টি করে।আর বাকিগুলো হালকা থেকে মাঝারি আকার ধারণ করে।

১. সর্দি

করোনা ভাইরাস সংক্রমণ করলে আপনার শরীরে সর্দি লেগে যায়।

২. কাশি

সর্দি থেকে আপনার কাশি হবে এবং শুকনো কাসি,খুসখুস কাশি ইত্যাদি কাশি থাকবে।

৩. জ্বর

করোনা ভাইরাস সংক্রমণের ফলে আপনার শরীরে জ্বর থাকবে।

৪. মাথা ব্যথা

এই ভাইরাস সংক্রমণের ফলে আপনার মাথা-ব্যথা হতে পারে।

৫. গলা ব্যথা

করোনা ভাইরাস আপনার গলা ব্যাথা তৈরি করে দিতে পাড়ে বা টনসিল হতে পারে।

৬.অজ্ঞান

মারাত্মক পর্যায়ে এই ভাইরাস আপনাকে অজ্ঞান করে দিতে পারে।

৭.নিউমোনিয়া ও ব্রঙ্কাইটিস

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ফলে শিশু, বৃদ্ধ ও কম রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতা সম্পন্ন ব্যক্তিদের নিউমোনিয়া ও ব্রঙ্কাইটিস হতে পারে।

৮.হাঁচি

আপনি এই ভাইরাসে সংক্রামিত হলে আপনার
হাঁচি হবে।আপনি একটু পর পর কন্টিনিউ হাঁচি দিতে থাকবেন।

৯.অবসাদ

আপনাকে এই ভাইরাস ক্লান্ত করে দিবে এবং আপনার ভিষণ অবসাদ বোধ হতে পারে।

১০.শ্বাস নিতে কষ্ট হওয়া

এই ভাইরাস আপনার শ্বাসনালীকে আক্রমণ করে এবং শ্বাস নিতে কষ্ট তৈরি করে ইত্যাদি।

COVID-19 বা করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে বাচার আশ্চর্যজনক উপায়সমুহঃ-

১।যেহেতু এটি কোন রোগ নয় একটি ভাইরাস।
তাই শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে এটিকে প্রতিরোধ করা সম্ভব।আর তাই আপনি
যথাযথভাবে হাত ধোয়ার অভ্যাস গড়ে তোলা পুষ্টিকর খাবার খাওয়া,শারীরিকভাবে সক্রিয় থাকা,মেডিটেশন করা,মানসিক চাপ নিয়ন্ত্রণে রাখা,পর্যাপ্ত ঘুম,এবং আপনার শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে এই ভাইরাসকে প্রতিরোধ করতে পারেন।

২।আপনার শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য নিচের খাবারগুলো খাবেন।

শাক-সবজি

পুইশাক,কচু,গাজর, কুমড়া, কাচামরিচ,পালং শাক,কলমিশাকসহ সব ধরণের শাকসবজি খেতে হবে।

ফল-মূল

কমলা, আপেল, পেঁপে, আনারস, মাল্টা, লেবু
কলা, তরমুজ স্ট্রবেরি, পেয়ারা, জাম্বুরা,ইত্যাদি খাবেন।

তাছাড়াও আপনি মাছ,মাংস,দুধ,ডিম, ভিটামিন এ,ভিটামিন সি, ভিটামিন বি৬,ভিটামিন ডি,ভিটামিন ই,সমৃদ্ধ খাবার খাবেন।কারণ এই খাবারগুলো আপনার শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য কার্যকর ভুমিকা পালন করে থাকে।

৩। হাঁচি বা কাশি আক্রান্ত ব্যক্তি থেকে দূরে থাকুন এবং আপনি হাঁচি বা কাশি দেওয়ার পরে হাত ধুয়ে নিন।

৪।এই ভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তির সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা এড়িয়ে চলুন।আপনার যদি মনে হয় যে আপনি সংক্রামিত,তাহলে কোনো ব্যক্তির সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা এড়িয়ে চলুন।

৫।সকল কিছুই ভালোভাবে সিদ্ধ করে রান্না করে খাবেন।

৬।নিজেকে ও পরিবারকে সারাক্ষণ হাইড্রেট রাখুন।

৭।এই ভাইরাসে সংক্রামিত এলাকা এবং ধূমপান করা এড়িয়ে চলুন।

৮।ভিড় বা জড়তা থেকে দূরে থাকুন এবং যথাযথ বিশ্রাম নিন।

৯।মুখে মাস্ক ব্যবহার করুন এবং হাত না ধুয়ে মুখ, চোখ ও নাক স্পর্শ করবেন না।

১০।মাঝে মাঝে সাবান-পানি বা স্যানিটাইজার দিয়ে হাত ধোলায় করুন।

১১।বন্য জীবজন্তু কিংবা গৃহপালিত পশু পাখিকে খালি হাতে স্পর্শ করবেন না।

১২।লক্ষণগুলো দেখা দেয়া মাত্রই ওষুধ খান এবং লক্ষণগুলো বা পরিস্থিতি গুরুতর হয়ে উঠতে দেবেন না।

১৩।আপনার বাড়ি ও বাড়ির আসেপাশে পরিস্কার রাখুন এবং ভাইরাসের সংক্রমণ ধ্বংস করতে জীবাণু ধ্বংসাতক স্পে ব্যাবহার করুন।

১৪।বৃষ্টিতে ভিজবেন না।জীবাণু ধ্বংসাতক সাবান এবং হালকা গরম পানি দিয়ে গোসল করুন ও কুসুম কুসুম গরম পানি পান করুন।

১৫।ভাইরাস আক্রান্ত দেশে ভ্রমণ করা যাবে না।

১৬।কেউ বা আপনি কাশি বা হাঁচি দিলে আগে মুখ ঢেকে নিন।

১৭।সংক্রামিত ব্যক্তির সঙ্গে হ্যান্ডশেক,নাক বা মুখ একসঙ্গে স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকতে হবে।

১৮।একজন আরেকজনের সঙ্গে ৩ ফুট দূরত্ব রেখে কথা বলুন এবং ঘুৃমান।

১৯।প্রতিদিন অন্তত আট গ্লাস পানি পান করুন।

২০।ঠাণ্ডা পানি,আইসক্রিম,মদপান,ধুমপান ও প্রক্রিয়াজাত খাবার এড়িয়ে চলুন।

সবাই সুস্থ থাকুন,সুস্থ রাখুন,ভালো থাকুন,সতর্ক ও সচেতন থাকুন এবং করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে বেচে থাকুন।ধন্যবাদ লেখক মোঃ লোকমান হোসেন