fbpx
Jun 8, 2020
1001 Views

জেনে নিন কীভাবে অনলাইনে নিরাপদ থাকবেন

Written by

ওয়েব দুনিয়া বড়দের এবং বাচ্চাদের জন্য সমানভাবে নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। আমাদের চোখ বন্ধ করার সময় পর্যন্ত আমরা জেগে থাকা মুহুর্ত থেকে আমরা ইন্টারনেটে নির্ভর হয়ে পড়েছি। এটি সোশ্যাল মিডিয়া, অনলাইন গেমস বা পঠনই থাকুন না কেন, আমরা সর্বদা এটিতে আবদ্ধ থাকি। এটি আধুনিক সময়ের একটি গুরুত্বপূর্ণ সরঞ্জাম যা প্রায় প্রতিটি ব্যক্তিকে অনেক উপায়ে সহায়তা করে। আমরা এর সাথে আসা টারপাইটিউডগুলিকেও উপেক্ষা করতে পারি না। ইন্টারনেটের ক্রমবর্ধমান জনপ্রিয়তা প্রত্যেকের জন্য সাইবার সুরক্ষা এবং অনলাইনে নিরাপদ থাকা কেন গুরুত্বপূর্ণ তা বোঝা গুরুত্বপূর্ণ করে তোলে।

হ্যাকস, স্ক্যামস, ম্যালওয়ার এর মত আরও অনেক কিছুর মাধ্যমে  ইন্টারনেট আজকাল একটি বিপজ্জনক জায়গার মতো অনুভব করতে পারে। এছাড়াও স্মার্টফোন এবং ট্যাবলেটগুলি থেকে ইন্টারনেট-সংযুক্ত অ্যাপ্লিকেশনগুলিতে সাম্প্রতিক ডিভাইসগুলির বিস্তার আমাদের আরও বেশি ঝুঁকির দিকে উন্মুক্ত করছে দিনের পর দিন।

তবে সুসংবাদটি হ’ল যে কেবলমাত্র কয়েকটি ক্ষুদ্র সুরক্ষা ব্যবস্থা গ্রহণের মাধ্যমে আমরা এই সমস্ত হুমকির প্রতি আমাদের এক্সপোজারকে হ্রাস করতে পারি এবং এই ক্ষেত্রে নিজেদের সচেতনতা অনেক বেশি জরুরি।

how to safe online easily

সচেতন হউন -ওয়েব ক্রাইম  থেকে নিরাপদে থাকুন

যেভাবে অনলাইনে নিরাপদ থাকবেন

এখানে কিছু টিপস সংযোজন করা হল যার মাধ্যমে একজন ওয়েব ব্যাবহার কারী নিরাপত্তার আওতাধীন হতে পারেনঃ

১)শুরুতেই জটিল পাসওয়ার্ড তৈরিঃ

আপনি নিশ্চই অবগত আছেন যে,আপনার সমস্ত সমালোচনামূলক অ্যাকাউন্টের জন্য শক্তিশালী, অনন্য পাসওয়ার্ড তৈরি করা আপনার ব্যক্তিগত এবং আর্থিক তথ্যকে সুরক্ষিত রাখার সেরা উপায়।এটি বিস্তৃত কর্পোরেট হ্যাকের যুগে বিশেষত সত্য, যেখানে একটি ডাটাবেস লঙ্ঘন হাজার হাজার ব্যবহারকারীর পাসওয়ার্ড প্রকাশ করতে পারে। আপনি যদি আপনার পাসওয়ার্ডগুলি পুনরায় ব্যবহার করেন তবে একজন হ্যাকার একটি আক্রমণ থেকে ফাঁস হওয়া ডেটা নিতে এবং আপনার অন্যান্য অ্যাকাউন্টগুলিতে লগইন করতে এটি ব্যবহার করতে পারে।সেরা পরামর্শ হল আপনার সমস্ত অ্যাকাউন্টের জন্য শক্তিশালী পাসওয়ার্ডগুলি সঞ্চয় এবং তৈরি করতে আপনার একটি পাসওয়ার্ড ম্যানেজার ব্যবহার করা উত্তম।

২)প্রহরী নিশ্চিত করুনঃ

আপনি অনলাইনে কী করেন, কোন সাইটগুলিতে যান এবং আপনি কী ভাগ করেন সে সম্পর্কে সর্বদা সতর্ক থাকুন।বিস্তৃত সুরক্ষা সফ্টওয়্যার ব্যবহার করুন এবং কিছু ভুল হয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে নিয়মিত আপনার ডেটা ব্যাকআপ করে নিশ্চিত করুন। প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করে, আপনি পরে মাথাব্যাথা থেকে নিজেকে বাঁচাতে পারেন।

৩)সর্বশেষ স্ক্যামগুলির সন্ধান করুন এবং আপ টু ডেট রাখুনঃ

অনলাইন হুমকি সব সময় বিকশিত হয়, তাই আপনি কী সন্ধান করবেন তা নিশ্চিত হন। বর্তমানে, “ransomware” বাড়ছে। এটি হ্যাকার হুমকি দেয় যখন আপনি মুক্তিপণ দিতে সম্মত না হন তবে আপনার সমস্ত ফাইল আপনাকে লক আউট করার হুমকি দেয়। অবহিত থাকাকালীন এবং অন্যান্য হুমকির উপরে থাকুন।আপনার সমস্ত সফ্টওয়্যার আপডেট রাখুন যাতে আপনার সর্বশেষতম সুরক্ষা প্যাচ থাকে। স্বয়ংক্রিয় আপডেটগুলি চালু করুন যাতে আপনাকে এটি সম্পর্কে ভাবতে হবে না এবং আপনার সুরক্ষা সফ্টওয়্যারটি নিয়মিত স্ক্যান চালানোর জন্য সেট করা আছে তা নিশ্চিত করুন।

৪) ফায়ারওয়াল ব্যবহারকারি হয়ে উঠুনঃ

আপনার নেটওয়ার্কটি সুরক্ষিত থাকলেও, আপনার এখনও একটি ফায়ারওয়াল ব্যবহার করা উচিত। এটি একটি বৈদ্যুতিক বাধা যা আপনার কম্পিউটার এবং ডিভাইসগুলিতে অননুমোদিত অ্যাক্সেসকে ব্লক করে এবং প্রায়শই বিস্তৃত সুরক্ষা সফ্টওয়্যার সহ অন্তর্ভুক্ত থাকে। ফায়ারওয়াল ব্যবহার নিশ্চিত করে যে,আপনার নেটওয়ার্কে সংযুক্ত সমস্ত ডিভাইস স্মার্ট থার্মোস্ট্যাটস এবং ওয়েবক্যামের মতো ইন্টারনেট অফ থিংস (আইওটি) ডিভাইস সহ সুরক্ষিত।

৫)নেটওয়ার্ক সুরক্ষা বুস্ট করুনঃ

এখন আপনার লগইনগুলি নিরাপদ, আপনার সংযোগগুলি নিরাপদ কিনা তা নিশ্চিত করুন। বাড়িতে বা কর্মস্থলে আপনি সম্ভবত একটি পাসওয়ার্ড-সুরক্ষিত রাউটার ব্যবহার করেন যা আপনার ডেটা এনক্রিপ্ট করে। তবে, আপনি যখন রাস্তায় থাকবেন তখন আপনাকে ফ্রি, পাবলিক ওয়াই-ফাই ব্যবহার করার প্রলোভন দেখাতে পারে public এর অর্থ হ্যাকারের পক্ষে আপনার ডিভাইস বা তথ্য অ্যাক্সেস করা অপেক্ষাকৃত সহজ। এজন্য আপনার ভার্চুয়াল প্রাইভেট নেটওয়ার্ক (ভিপিএন) এ বিনিয়োগ করা উচিত। একটি ভিপিএন হ’ল একটি সফ্টওয়্যার যা ইন্টারনেটে একটি সুরক্ষিত সংযোগ তৈরি করে, যাতে আপনি যে কোনও জায়গা থেকে নিরাপদে সংযোগ স্থাপন করতে পারেন।

৬)একটি সুরক্ষিত ভিপিএন সংযোগ ব্যবহার করুনঃ

আপনার ইন্টারনেট ব্রাউজিং সুরক্ষা আরও উন্নত করতে, সুরক্ষিত ভিপিএন সংযোগ (ভার্চুয়াল ব্যক্তিগত নেটওয়ার্ক) ব্যবহার করুন। ভিপিএন আপনাকে আপনার ডিভাইস এবং একটি ইন্টারনেট সার্ভারের মধ্যে সুরক্ষিত সংযোগ রাখতে সক্ষম করে যা আপনার বিনিময় করা ডেটা কেউ পর্যবেক্ষণ বা অ্যাক্সেস করতে পারে না।কর্পোরেট সাইবারসিকিউরিটি বিশেষজ্ঞরা “এন্ডপয়েন্টস” – এমন জায়গাগুলি সম্পর্কে উদ্বিগ্ন হন যেখানে একটি ব্যক্তিগত নেটওয়ার্ক বাইরের বিশ্বের সাথে সংযুক্ত থাকে। আপনার দুর্বল প্রান্তটি হল আপনার স্থানীয় ইন্টারনেট সংযোগ।আপনার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট নম্বর হিসাবে তথ্য সরবরাহ করার আগে আপনার ডিভাইসটি সুরক্ষিত রয়েছে এবং সন্দেহের সময়ে, আরও ভাল সময়ের (যেমন আপনি কোনও সুরক্ষিত ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্কের সাথে সংযোগ স্থাপন করতে সক্ষম না হওয়া পর্যন্ত) অপেক্ষা করুন তা নিশ্চিত করুন।

৭)আপনার অ্যান্টিভাইরাস প্রোগ্রামটি আপ টু ডেট রাখুনঃ

ইন্টারনেট সুরক্ষা সফ্টওয়্যার প্রতিটি হুমকির বিরুদ্ধে রক্ষা করতে পারে না, তবে এটি বেশিরভাগ ম্যালওয়্যার সনাক্ত এবং সরিয়ে ফেলবে — যদিও আপনার এটি নিশ্চিত হওয়া উচিত।আপনার অপারেটিং সিস্টেমের আপডেট এবং আপনি যে অ্যাপ্লিকেশনগুলি ব্যবহার করেন সেগুলির আপডেটের সাথে বর্তমান থাকার বিষয়ে নিশ্চিত হন।

  • আপনার ইন্টারনেট সুরক্ষা নিশ্চিত করতে পণ্যগুলি:
  • ক্যাসপারস্কি ইন্টারনেট সুরক্ষা
  • ক্যাসপারস্কি ভিপিএন সুরক্ষা সংযোগ
  • ক্যাস্পেরকি অ্যান্টিভাইরাস

৮) সুরক্ষিত সাইটগুলি থেকে অনলাইন ক্রয়ঃ

আপনি যে কোন পণ্য কেনার সময় অনলাইনে আপনার ক্রেডিট কার্ড বা ব্যাংক অ্যাকাউন্টের তথ্য সরবরাহ করতে হবে – সাইবার অপরাধীরা কীভাবে তাদের হাত পেতে আগ্রহী। সুরক্ষিত, এনক্রিপ্ট হওয়া সংযোগ সরবরাহকারী সাইটগুলিতে কেবল এই তথ্য সরবরাহ করুন। বোস্টন ইউনিভার্সিটি নোট হিসাবে, আপনি https: (এস সুরক্ষার পক্ষে দাঁড়ায়) দিয়ে শুরু করে এমন কোনও ঠিকানা অনুসন্ধান করে সুরক্ষিত সাইটগুলি সনাক্ত করতে পারেন: এগুলি ঠিকানা বারের পাশের প্যাডলক আইকন দ্বারা চিহ্নিতও করা যেতে পারে।

৯)স্মার্ট ক্লিকঃ

আজকের অনলাইন হুমকির অনেকগুলি ফিশিং বা সামাজিক প্রকৌশল ভিত্তিক। এটি যখন আপনি প্রতারণামূলক উদ্দেশ্যে ব্যক্তিগত বা সংবেদনশীল তথ্য প্রকাশের দিকে প্রতারিত হন। স্প্যাম ইমেল, ফনি “ফ্রি” অফার, ক্লিক টোপ, অনলাইন কুইজ এবং আরও অনেকগুলি আপনাকে কৌশলগুলি বিপজ্জনক লিঙ্কগুলিতে ক্লিক করতে বা আপনার ব্যক্তিগত তথ্য ত্যাগ করতে প্রলুব্ধ করতে এই কৌশলগুলি ব্যবহার করে।

১০) একটি নির্বাচনী অংশীদার হনঃ

অনলাইনে আমাদের ব্যক্তিগত তথ্য ভাগ করে নেওয়ার প্রচুর সুযোগ রয়েছে। আপনি কী ভাগ করেন তা সম্পর্কে কেবল সতর্ক হন, বিশেষত যখন এটি আপনার পরিচয় সম্পর্কিত তথ্য আসে।

১১)মোবাইল লাইফঃ

আমাদের মোবাইল ডিভাইসগুলি আমাদের ল্যাপটপের মতোই অনলাইন হুমকির জন্যও অরক্ষিত হতে পারে।আপনি যেখানে ক্লিক করেছেন সেদিকে সাবধান থাকুন,অপরিচিত ব্যক্তিদের বার্তাগুলির প্রতিক্রিয়া দেখবেন না এবং অন্যান্য ব্যবহারকারীদের পর্যালোচনা প্রথমে পড়ার পরে কেবল অফিশিয়াল অ্যাপ স্টোর থেকে অ্যাপস ডাউনলোড করুন।

১২) নিরাপদ ব্রাউজিং

আপনি কোনও বিপজ্জনক প্রতিবেশের মধ্য দিয়ে চলার পছন্দ করবেন না। অনলাইনে বিপজ্জনক পাড়াগুলি ঘুরে দেখবেন না। সাইবার অপরাধীরা টোপ হিসাবে লরিড সামগ্রী ব্যবহার করে। তারা জানে যে মানুষ কখনও কখনও সন্দেহজনক বিষয়বস্তু দ্বারা প্রলুব্ধ হয়।

পরিশেষ মন্তব্যঃ

ইন্টারনেট আধুনিক সময়ের একটি প্রয়োজনীয় মাধ্যম।আমরা অবশ্যই তা ছাড়া বাঁচতে পারি না। ওয়েব নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে একটি স্থিতিশীল এবং দক্ষ নেটওয়ার্ক সুরক্ষা ব্যবস্থা অপরিহার্য। একটি ভাল নেটওয়ার্ক সুরক্ষা ব্যবস্থা ব্যবসায় ডেটা চুরি এবং নাশকতার শিকার হওয়ার ঝুঁকি হ্রাস করতে সহায়তা করে। নেটওয়ার্ক সুরক্ষা ওয়ার্কস্টেশনগুলিকে ক্ষতিকারক স্পাইওয়্যার থেকে রক্ষা করতে সহায়তা করে। অন্যদিকে ফোনগুলিতে আজ একটি লক কোডের বিকল্প রয়েছে। সবচেয়ে সংক্ষিপ্ত লক সময় এবং দীর্ঘতম লক কোড ব্যবহার করে, কারও পক্ষে অন্য কারও ফোন বাছাই করা এবং দায়িত্বহীনভাবে এটি ব্যবহার করা কঠিন করে তোলে। উপরিউক্ত বেসিক ইন্টারনেট সুরক্ষা নিয়মগুলি মেনে চললে সকল ওয়েব ব্যবহার কারীগণ অযত্নজনিতদের জন্য অনলাইনে লুকিয়ে থাকা অনেকগুলি বাজে আশ্চর্য এড়াতে পারবেন।

Article Categories:
internet
https://techtunes.com.bd

হেই টেকলাভারস,আমি চেষ্টা করব আপনাদের নতুন কিছু দেওয়ার এবং অবশ্যই সেগুলা হবে আমার রিয়েল লাইফ এক্সপেরিয়েন্স থেকে, হেল্প ডেস্কে যেগুলা প্রশ্ন জমা পরবে সেগুলার উত্তর আপনাদের যথাসাধ্য সঠিকভাবে দেওয়ার চেষ্টা করবো আপনারা আমার টিউন গুলো সব ভালভাবে পড়বেন এবং বুঝার চেষ্টা করবেন, যদি কোথাও বুঝতে কোন অসুবিধা হয় কমেন্টে জানাবেন আমি চেষ্টা করবো আরোও ক্লিয়ার কন্সেপ্ট দিতে ইনশাআল্লাহ 🙂সবশেষে সবার জন্য শুভকামনা এবং সবাই আমার জন্য দুয়া করবেন যেন আমি ভাল কিছু অবশ্যই করতে পারি 🙂

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *